মেডিক্যাল বর্জ্য: প‌রি‌বেশ ও জনস্বা‌স্থের জন্য মারাত্বক হুম‌কি

অথর
অা ন ম মোয়া‌জ্জেম হো‌সেন  ঢাকা
প্রকাশিত :২৮ জানুয়ারি ২০১৯, ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 554 বার
মেডিক্যাল বর্জ্য: প‌রি‌বেশ ও জনস্বা‌স্থের জন্য মারাত্বক হুম‌কি

 অাসুন সারা দে‌শের সব স্বাস্থ্য সেবা প্র‌তিষ্ঠানে নি‌জে‌দের উদ্যো‌গে এই স্টীকার সে‌টে দিই ও মে‌ডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অাধু‌নিকায়‌নে নি‌ম্নোক্ত নিয়মে মে‌ডিক্যাল বর্জ্য সংরক্ষ‌নে প্রশাসন‌কে সহ‌যো‌গিতা ক‌রি । বর্জ্য ব্যবস্থাপনা থেকে এখনো আলাদা করা হয়নি মেডিক্যাল বর্জ্যকে। স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ মেডিক্যাল বর্জ্য আলাদা না করে এখনো ফেলা হয় ডাস্টবিন, রাস্তাঘাটসহ যত্রতত্র। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য মতে, রাজধানী ঢাকায় সরকারি হাসপাতালগুলো ছাড়াও এক হাজার ২শ ছোট-বড় রেজিস্টার্ড প্রাইভেট হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে। এর বাইরেও রেজিস্ট্রেশনবিহীন পাঁচ শতাধিক প্রতিষ্ঠান নগরীতে চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে। এসব প্রতিষ্ঠান জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্য হুমকি হিসাবে গণ্য; ‌কোন হাসপাতাল সঠিক মে‌ডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা মেনে চলছে না। সৃষ্ট চিকিৎসা বর্জ্য যেখানে-সেখানে ফেলা হচ্ছে। নিক্ষিপ্ত বর্জ্যের তালিকায় রয়েছে যেমন সুচ, সিরিঞ্জ, রক্ত ও পুঁজযুক্ত তুলা, গজ, ব্যান্ডেজ, মানব-অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ, ওষুধের শিশি, ব্যবহৃত স্যালাইন, রক্তের ব্যাগ এবং রাসায়নিক দ্রব্যসহ সব ধরনের চিকিৎসাজাত ময়লা-আবর্জনা। সুনির্দিষ্ট আইনের অভাব, অপ্রতুল প্রচার, নিয়ন্ত্রণহীনতা ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয়ের অভাবে হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলো বর্জ্য ব্যবস্থাপনার আওতায় আসছে না। মেডিক্যাল বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে আইনগত বাধ্যবাধকতা ও প্রয়োজনীয় সচেতনতা না থাকায় অনেক প্রতিষ্ঠান সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্পে সক্রিয়ভাবে অংশও নিচ্ছে না বলে জানা গেছে। এসব বর্জ্য যথাযথভাবে প্রক্রিয়াকরণ না করায় ছড়িয়ে পড়ছে হেপাটাইটিস ‘বি’, হেপাটাইটিস ‘সি’, যক্ষ্মা, ডিপথেরিয়া এমনকি বাড়ছে এইডসের মতো মরণব্যাধির ঝুঁকি। অথচ বিশ্বস্বাস্থ সংস্থার নী‌তিমালা অনুযায়ী প্রত্যেকটি হাসপাতাল বা ক্লিনিকের নিরাপদ স্থা‌নে হলুদ , লাল , সাদা ও নীল এবং সাধারন ব‌র্জ্যের অালাদা অালাদা কন্টেইনার রাখা বাধ্যতামূলক কর‌তে সারা দে‌শের প‌রি‌বেশ কর্মী‌দের এগি‌য়ে অাসা উচিৎ । সেই সা‌থে হলুদ ও লাল কনটেইনার বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বর্জ্য নি‌ম্নোক্ত ‌নিয়‌মে সংরক্ষণ না কর‌লে উইনিয়ন থানা বা পৌরসভার স্বাস্তকর্মী বা প‌রি‌বেশ কর্মী বা প‌রি‌বেশ অ‌ধিদপ্তর বা নির্বাহী মে‌জি‌স্ট্রেট কে অ‌বি‌হিত ক‌রে স্থায়ী প্র‌তিকা‌রের জন্য লি‌খিত অা‌বেদন করুন । এসব বর্জ্য নি‌ম্নোক্ত নিয়ম ব্য‌তি‌রে‌কে কোনোভাবেই অন্য বর্জ্যের সঙ্গে মেশানো যাবে না ।

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ
  • 47
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    47
    Shares

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *