১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে বহনকারী ট্রেন

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :১১ আগস্ট ২০১৯, ৯:১১ অপরাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 103 বার
১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে বহনকারী ট্রেন ১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে বহনকারী ট্রেন

এবার ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয় ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। কোনো কোনো ট্রেন তো ১৫/২০ ঘণ্টা পর্যন্ত দেরিতে ছেড়েছে। পরিস্থিতি ক্রমে খারাপের দিকে যাওয়ায় অগ্রিম টিকিট ফেরত নেয়ার ঘোষণা দেন রেল সচিব। ঈদযাত্রা শেষ মুহূর্তে এসে সেই বিপর্যয়ে চিত্রই ফুটে উঠলো পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের ফেসবুক পোস্টে। জানালেন, উনাকে বহনকারী ট্রেনটি ছেড়েছে ১৫ ঘণ্টা দেরিতে।

রবিবার সন্ধ্যায় এক ফেসবুক পোস্টে শাহরিয়ার আলম লেখেন, আমার ট্রেন ১৫ ঘণ্টা দেরিতে ছাড়লো। সিডিউলে থাকা অনেক প্রোগ্রাম মিস করলাম। দুইদিন ধরে টিভিতে দেখলাম মানুষের ভোগান্তি, এগুলো আমাকে অনেক ভাবিয়েছে। আজকে নিজের চোখেও দেখলাম। সামনে ৯ মাস সময় পাওয়া যাবে অন্তত রাস্তার কাজগুলো শেষ করার এবং ব্যবস্থাপনা ভালো করার। ঈদের ছুটির পরপরই আমার অভিজ্ঞতা থেকে মাননীয় যোগাযোগ মন্ত্রী এবং মাননীয় রেলপথ মন্ত্রীর কাছে আমার প্রস্তাবনা গুলো লিখিত ভাবে দিব।

তবে কিছু আশার কথাও জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি আরো লেখেন, ৩০ বছর ধরে ঢাকা-রাজশাহী নিয়মিত যাতায়াত করি। সব ধরনের অভিজ্ঞতাই আছে ঈদের আগের যাত্রা পথে। পূর্ব ও দক্ষিণ অঞ্চলের যাতায়াতে স্বস্তি এসেছে। উত্তর ও পশ্চিম অঞ্চলের সমস্যা রয়ে গেছে। তবে আসার কথা হচ্ছে যমুনা নদীর উপর রেল সেতু করার জন্য সমীক্ষার কাজ প্রায় সমাপ্ত এবং আমরা জাপানের সাথে আলোচনা প্রায় শেষ করে এনেছি, রেল সেতু নির্মাণের কাজ ইনশাআল্লাহ আগামী বছর শুরু করা যাবে। সেই সাথে রেলের ডাবল লাইন নির্মাণের কাজও শুরু হবে। রাস্তার জ্যামে এখন সমস্যা হিসেবে সিরাজগঞ্জ অংশ যার প্রভাব সেতু ছাড়িয়ে টাংগাইল পর্যন্ত চলে আসে। চার লেনের কাজের মাঝে ১৪ কিলোমিটার শেষ হলে একটা ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

পরিশেষে সবাইকে ঈদ মোবারক জানান শাহরিয়ার আলম, ‘পরিবার নিয়ে সবাই ভালো থাকবেন। ঈদ মোবারক।’

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *