নিউইয়র্কে সাংবাদিক কিরনের সফল অস্ত্রোপচার এবং আমেরিকার স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে দুটি কথা

অথর
নিজস্ব প্রতিবেদক   বাংলাদেশ
প্রকাশিত :২৬ মার্চ ২০২০, ৩:১৭ পূর্বাহ্ণ | নিউজটি পড়া হয়েছে : 93 বার
নিউইয়র্কে সাংবাদিক কিরনের সফল অস্ত্রোপচার এবং আমেরিকার স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে দুটি কথা

নিউইয়র্কে সাংবাদিক কিরনের সফল অস্ত্রোপচার
এবং আমেরিকার স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে দুটি কথা

ভয়েজ অব আমেরিকার নিউইয়র্ক প্রতিনিধি সাংবাদিক আকবর হায়দার কিরনের দেহে সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে ম্যানহাটানের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে মস্তিস্কে অস্ত্রোপচার হয় তার। এরআগে বাসায় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে এস্টোরিয়ার মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে নেয়া হয়। চিকিৎসকরা জানান, তিনি স্ট্রোক করেছেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সবকিছু ঠিক থাকলে আকবর হায়দার কিরন স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন। সাংবাদিক কিরনের বন্ধু কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট মিনহাজ আহমেদ সাম্মু চিকিৎসকদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানান।

এবার আমেরিকার চিকিৎসা ব্যবস্থা নিয়ে কিছু বলি। মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে বাসার বাথরুমে পড়ে গেলে আকবর হায়দার কিরনকে কাছাকাছি এস্টোরিয়ার মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে নেয়া হয়। এম্বুলেন্স এসে তাকে নিয়ে যাওয়ার পর হাসপাতালে কিরনের কোনো আত্মীয়-স্বজনকে অ্যাটেনডেন্ট হিসেবে এলাউ করা হয়নি। অসুস্থ কিরন সম্পূর্ণরূপে চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে চলে যান।

নিউইয়র্কে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করায় হাসপাতালগুলোতে রোগীর নিকট আত্মীয়-স্বজনদেরও হাসপাতালে থাকার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। এ অবস্থায় কিরনের আত্মীয়-স্বজনরা বাধ্য হয়ে বাসায় চলে আসেন।

বুধবার সকালে মিনহাজ আহমেদ সাম্মু এস্টোরিয়ার মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে যোগাযোগ করলে হাসপাতাল থেকে জানানো হয় এ নামে কোনো রোগী নেই। আকবর হায়দার কিরনের পরিবার ও জনাব সাম্মু বিচলিত হয়ে পড়েন। পড়ে খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায়, রাতেই তাকে এস্টোরিয়া থেকে ম্যানহাটানের হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। এজন্য বুধবার এস্টোরিয়ার হাসপাতালের রেকর্ডে এ নামে কোনো রোগী ছিল না।

যাই হোক, চিকিৎসকেরা জানান, রোগীর মস্তিস্কে রক্তক্ষরণ হওয়ায় তিন ঘণ্টার মধ্যে অপারেশন করা জরুরি হয়ে পড়েছিল। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সাংবাদিক কিরনকে ম্যানহাটানে স্থানান্তর করে মাত্র দুই ঘণ্টার মধ্যে তার দেহে অস্ত্রোপচার করতে সক্ষম হন।

চিকিৎসকরা জানান, অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে। তিনি এখন চেতন-অবচেতনের মধ্যে আছেন। তারা রোগীকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রেখেছেন। তবে অস্ত্রোপচার সফল হওয়ায় পরে সবকিছু ঠিক থাকলে আকবর হায়দার কিরনের স্বাভাবিক জীবনে ফেরার সম্ভাবনা প্রায় শতভাগ।

এই যে পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলো, এই সময়ের মধ্যে রোগীর কোনো আত্মীয়কে ফোন করেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তারা যা প্রয়োজনীয় মনে করেছেন, তা যথাযথভাবে করে ফেলেছেন। রোগীর আর্থিক সঙ্গতি আছে কি-না, ইন্সরেন্স কাভার করবে কি-না, কোনো বিষয় বিবেচনায় নিয়ে বিন্দুমাত্র কালক্ষেপণ করেনি তারা।

চিকিৎসা-বিজ্ঞান এখনো মানুষের মৃত্যুকে রুখতে পারেনি। যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসায় যে ভুল হয় না তাও নয়। তবুও আমেরিকার চিকিৎসা ব্যবস্থার উপর মানুষের আস্থা শতভাগ। সাংবাদিক কিরনের ঘটনায় আবারও তা প্রমাণ হলো।

আসুন, আমরা সবাই আকবর হায়দার কিরনের জন্য প্রার্থনা করি। তিনি যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসেন। ধন্যবাদ।

হাসানুজ্জামান সাকী
নিউইয়র্ক

সংবাদটি শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে আমাদের সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।